সোমবার, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০ ইং | আশ্বিন ৫, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১ সফর, ১৪৪২ হিজরি

বার্তাপ্রতিক্ষণ / সংবাদ / আন্তর্জাতিক / অপেক্ষার আবসান, ৩ থেকে ৭ দিনের মধ্যেই বাজারে আসছে রাশিয়ার ভ্যাকসিন!

অপেক্ষার আবসান, ৩ থেকে ৭ দিনের মধ্যেই বাজারে আসছে রাশিয়ার ভ্যাকসিন!

চীন-আমেরিকাকে পেছনে ফেলে সবার আগে করোনা ভ্যাকসিন আবিষ্কারের ঘোষণা আগেই দিয়েছিল রাশিয়া। তবে তাদের সেই দাবির সত্যতা নিয়ে অনেকেই সন্দেহ পোষণ করেছিলেন। তবে এবার ভ্যাকসিন চূড়ান্তভাবে বাজারে আনতে চলেছে ভ্লাদিমির পুতিনের দেশ।

ক্রমবর্ধমান করোনা সংক্রমণের জেরে নাজেহাল বিভিন্ন দেশ। এই মারণ রোগের প্রতিষেধক বাজারে আনার ক্ষেত্রে শেষ ধাপে এগিয়ে গেল রাশিয়া।

রাশিয়া দাবি করেছে ১০ থেকে ১২ তারিখের মধ্যেই করোনা ভ্যাকসিন আসছে বাজারে! করোনাকে হারাতে সক্ষম এটাই বাজারে আসতে চলা প্রথম ভ্যাকসিন। সংবাদ সংস্থা ব্লুমবার্গের তথ্য অনুযায়ি লঞ্চের জন্য সমস্ত প্রস্তুতি ইতিমধ্যেই সারা হয়ে হয়ে গেছে।

রিপোর্ট অনুযায়ি প্রথমে এটাকে রেজিস্টার্ড করা হবে৷ তার ৩ থেকে ৭ দিনের মধ্যে বাজারে চলে আসবে এই ভ্যাকসিন৷ রাশিয়ার পক্ষ থেকে প্রথমে জানানো হয়েছিল ১৫ অগাস্টের আশেপাশে এই ভ্যাকসিন লঞ্চ হবে এখন আবার তা লাফিয়ে সপ্তাহখানেক এগিয়ে আসছে৷

গামালেই ইন্সটিটিউট অফ এপিডেমোলজি অ্যান্ড মাইক্রোবায়োলজি করোনার এই ভ্যাকসিনটি তৈরি করেছে। গত ১৮ জুন সেচেনভ বিশ্ববিদ্যালয়ে সেটির ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু হয়। বিশ্বের প্রথম প্রতিষ্ঠান হিসেবে তারাই স্বেচ্ছাসেবকদের উপরে এই ওষুধের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করে। মোট ৩৮ জন স্বেচ্ছাসেবকের উপরে এক মাস ধরে এই পরীক্ষা চালানো হয়। আবেদনের দু’সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে এই অনুমোদন পেতে চলেছে তারা।

রাশিয়ার উপ-স্বাস্থ্যমন্ত্রী ওলেগ গ্রিডনেভ জানিয়েছেন, ‘মস্কোর গ্যামেলিয়া সেন্টার ১২ আগস্ট বিশ্বের প্রথম করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন নিবন্ধন করবে। তিনি আরো বলেছেন, টিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে চিকিৎসা কর্মী ও প্রবীণদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।’

গামালেই সেন্টারের প্রধান অ্যালেক্স্যান্ডার গিন্টসবার্গ, রাশিয়ার সরকারি সংবাদমাধ্যম টিএএসএসকে জানিয়েছেন যে তিনি আশা করেন ১২ থেকে ১৪ আগস্টের মধ্যে এই টিকা আসার সম্ভাবনা রয়েছে।

শুক্রবার সকালে গ্রিডনেভ সাংবাদিকদের বলেন, গ্যামেলিয়া সেন্টারে বিকশিত এই ভ্যাকসিনের নিবন্ধন শুরু হবে। এখন শেষ পর্যায়ে তৃতীয় ধাপের ট্রায়ালটি চলছে, এটি পরীক্ষার অংশ এবং এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের বুঝতে হবে যে ভ্যাকসিনটি শতভাগ নিরাপদ কিনা সেটা নিশ্চিত হতে হবে।

এদিকে এই ভ্যাকসিন নিয়ে রীতিমতো আশঙ্কিত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। WHO-র মতে যে কোনও ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে তৃতীয় পর্বের হিউম্যান ট্রায়াল সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ । আর এই পর্বের ট্রেনিংয়ের মধ্যে দিয়ে আদৌ যায়নি রাশিয়া। তাদের মতে করোনা ভাইরাসের এই ভ্যাকসিন সেই পর্বের মধ্যে দিয়ে না গেলে তা পরবর্তী পর্যায়ে মারাত্মক ক্ষতিকরও প্রতিপন্ন হতে পারে। সূত্র : নিউজ এইটটিন।

আরও পড়ুন

করোনামুক্ত হলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম

২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম করোনাভাইরাস থেকে আরোগ্য লাভ করেছেন। বর্তমানে... বিস্তারিত এখানে

কানাডার সাবেক প্রধানমন্ত্রী জন টার্নারের মৃত্যু

২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

কানাডার সাবেক প্রধানমন্ত্রী জন টার্নার ১৯৮০ এর দশকে মাত্র ১১... বিস্তারিত এখানে